1. [email protected] : শেয়ারবার্তা প্রতিবেদক : শেয়ারবার্তা প্রতিবেদক
  2. [email protected] : শেয়ারবার্তা প্রতিবেদক : শেয়ারবার্তা প্রতিবেদক
  3. [email protected] : শেয়ারবার্তা : nayan শেয়ারবার্তা
  4. [email protected] : শেয়ারবার্তা প্রতিবেদক : শেয়ারবার্তা প্রতিবেদক
  5. [email protected] : শেয়ারবার্তা.কম : শেয়ারবার্তা.কম
গুজব রোধে বিটিআরসির সহায়তা চেয়েছে বিএসইসি
বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০২:২৪ অপরাহ্ন

গুজব রোধে বিটিআরসির সহায়তা চেয়েছে বিএসইসি

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০
BTRC-BSEC

পুঁজিবাজার নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়ানোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) সহায়তা চেয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। যেসব গ্রুপ বা পেজ আইডি ব্যবহার করে গুজব প্রচার হচ্ছে তার একটি তালিকা তৈরি করেছে বিএসইসি।

এই তালিকাসহ বিটিআরসিকে গতকাল বৃহস্পতিবার একটি চিঠি দিয়েছে সংস্থাটি।

সংশ্লিষ্ট সূত্র ও তথ্যে জানা গেছে , সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে অনেকে গ্রুপ বা পেজের মাধ্যমে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর শেয়ারের দাম বাড়া বা কমার বিষয়ে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। এর মাধ্যমে পুঁজিবাজারে স্বাভাবিক পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে।

তাই এসব পেজ বা গ্রুপের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের আইডি বন্ধ করতে অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের নেতৃত্বাধীন কমিশন কঠোর অবস্থানে রয়েছে। কিছু দিন আগে বিএসইসি থেকে এ ব্যাপারে একটি আদেশ জারি করেছে কমিশন।

ওই আদেশে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যেসব ব্যক্তি বিএসইসি, ডিএসই, সিএসইর লোগো ব্যবহার করছে তাদের বিরত থাকতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে কোনো শেয়ারের মূল্য ওঠানামার পূর্বাভাস, অনুমান নির্ভর তথ্য, কোনো কোম্পানির অপ্রকাশিত তথ্য প্রচার থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে।

এরপরও যদি কারো বিরুদ্ধে এ ধরনের কর্মকান্ড পরিচালনার প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে দ্য সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ অর্ডিন্যান্স, ১৯৬৯ অনুযায়ী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

একই সঙ্গে অভিযুক্তদের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, ২০১৮ এর আওতায় আনা হবে। আদেশ জারির আগে ও পরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কয়টি গ্রুপ বা পেইজ গুজব ছড়িয়ে যাচ্ছে তার একটি তালিকা তৈরি করেছে বিএসইসি।

এতে ‘ডিসিশন মেকার’ নামের একটি গ্রুপও রয়েছে বলে জানা গেছে। বৃহস্পতিবার তালিকাসহ একটি চিঠি বিটিআরসিকে দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ফেসবুক, টুইটার, ইমো, হোয়াটস অ্যাপ, ভাইভার ও অন্যান্য অ্যাপসে গ্রুপ বা পেইজ খুলে কিছু চক্র বাজারে শেয়ারের দাম বাড়া বা কমার আগাম তথ্য দিয়ে থাকে। বাজারে এভাবে গুজব ছড়িয়ে একাধিক চক্র লাভবান হচ্ছে।

ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার মতামত জানান:

ভালো লাগলে শেয়ার করবেন...

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ