ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ৪ পৌষ ১৪২৫

বিনিয়োগ উপযোগি আট ব্যাংকের শেয়ার

২০১৭ নভেম্বর ০৩ ২০:৪৫:১২
বিনিয়োগ উপযোগি আট ব্যাংকের শেয়ার

সাম্প্রতিককালে শেয়ারবাজারে চাঙ্গাভাব ফিরে এসেছে। দেখা মিলছে তালিকাভুক্ত কোম্পানির শেয়ার দরের টানা উত্থান। এরফলে তালিকাভুক্ত অনেক কোম্পানি রেকর্ড দর অতিক্রম করেছে। অব্যাহত উত্থানে অতিমূল্যায়িত্ব হচ্ছে অনেক কোম্পানির শেয়ার দর। আবার অব্যাহত উত্থানেও অবমূল্যায়িত্ব রয়ে গেছে অনেক কোম্পানির শেয়ার দর।

বাজার সংশ্লিষ্টদের মতে, শেয়ারবাজারের অব্যাহত উত্থান পরিস্থিতির মধ্যেও অনেক ব্যাংকের শেয়ার এখনো নিরাপদে বিনিয়োগ উপযোগি। তাঁদের মতে, ২০১০ সালের ধসের পর সবচেয়ে বেশি দর বিপর্যয় হয়েছে ব্যাংক খাতের শেয়ারে। এখাতের শেয়ার সবচেয়ে বেশি অবমূল্যায়িত হয়েছে। এখনো এখাতের অনেক কোম্পানির শেয়ার নিরাপদ বিনিয়োগের জন্য অনেক উপযোগি। তবে উত্থানের বাজারে ব্যাংক খাতের শেয়ারেও দেখেশুনে বিনিয়োগ করার পরামর্শ দেন তাঁরা।

উল্লেখ্য, একটি প্রতিষ্ঠানের মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও) বিবেচনায় কোম্পানিটির শেয়ারে বিনিয়োগের অনুকূল ও প্রতিকূল অবস্থা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। গত সপ্তাহের আগের সপ্তাহে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) মূল্য আয় অনুপাত (পিই রেশিও) ১৬.৩৮ পয়েন্ট অতিক্রম করেছিল। গত সপ্তাহে ডিএসই’র পিই কিছুটা কমে ১৬.২৫ পয়েন্টে দাঁড়ায়। তবে পিই রেশিও ১৫ এর নিচে থাকা কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগকে উত্তম বলে মনে করেন বাজার বিশ্লেষকরা। আর পিই ১০ এর নিচে থাকা কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগকে ঝুঁকিমুক্ত বিনিয়োগ মনে করেন তাঁরা। তবে ৪০ এর নিচে পিই রেশিও রয়েছে এমন কোম্পানিগুলোর শেয়ারে বিনিয়োগ করা যায় বিধায় মার্জিন ঋণ প্রধানের নিয়ম রেখেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

ডিএসই’র তথ্য মতে, পিই ১০ এর নিচে রয়েছে এমন কোম্পানির সংখ্যা ৮টি। পিই রেশিওসহ কোম্পানিগুলো হলো-সাউথইস্টব্যাংক ৬.২৮, ওয়ান ব্যাংক ৬.৭৪, মার্কেন্টাইল ব্যাংক ৭.০৪, ইউসিবি ব্যাংক ৭.৪১, প্রিমিয়ার ব্যাংক ৮.০২, আইএফআইসিব্যাংক ৯.৬০, এনসিসিব্যাংক ৯.৮৭ এবং যমুনাব্যাংক ৯.৯৬।

এদিকে, পিই ১৫ এর নিচে রয়েছে এমনব্যাংকের সংখ্যা ১৫টি। পিই রেশিওসহব্যাংকগুলো হলো-আল-আরাফাইসলামী ব্যাংক ১০.১৩, ট্রাস্ট ব্যাংক ১০.২১, উত্তরা ব্যাংক ১০.৩৮, ফাস্ট সিকিউরিটি ব্যাংক ১০.৪১, এক্সিম ব্যাংক ১০.৭১, ঢাকা ব্যাংক ১০.৮০, ইবিএল ১০.৯৪, ডাচ-বাংলা ব্যাংক ১১.৩৫, এনবিএল ১১.৬৮, ইসলামি ব্যাংক ১১.৭৭, সিটি ব্যাংক ১১.৮২, পূবালী ব্যাংক ১২.৮৬, শাহজালাল ব্যাংক ১৪.০৪, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক ১৪.৩২ এবং প্রাইম ব্যাংক ১৪.৪২।

ডিএসই সূত্রমতে, চলতি বছরের প্রথম ৯ মাসে শেয়ারপ্রতি আয় ১০০ শতাংশের বেশি বেড়েছে চার ব্যাংকের। এ তালিকায় প্রথমে রয়েছে প্রাইম ব্যাংক। ব্যাংকটির ৫২২ শতাংশ ইপিএস বেড়েছে। এরপর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২২২ শতাংশ বেড়েছে প্রিমিয়ার ব্যাংকের। ১০৬ শতাংশ বেড়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ব্যাংক এশিয়া। রূপালী ব্যাংকের আয় বেড়েছে ১১১ শতাংশ।

এছাড়া, চলতি বছরের ৯ মাসে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বৃদ্ধি পাওয়া ব্যাংকগুলোর তালিকায় রয়েছে: এক্সিম, ইউসিবি, মার্কেন্টাইল, ওয়ান, ব্র্যাক, পূবালী, যমুনা, এনসিসি, ডাচ্-বাংলা, এক্সিম, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল, শাহজালাল ইসলামী, ইস্টার্ন, দি সিটি ব্যাংক, ট্রাস্ট, স্ট্যান্ডার্ড, আইএফআইসি, আল-আরাফাহ্, সাউথইস্ট ও উত্তরা ব্যাংক লিমিটেডের।

তবে চলতি বছরের প্রথম ৯ মাসে ৬১ শতাংশ আয় কমেছে এবি ব্যাংকের। এরপর আয় কমার তালিকায় রয়েছে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক। বেসরকারি খাতের এ ব্যাংকটির আয় কমেছে ৫০ শতাংশ। ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংকের ২৬, ইসলামী ব্যাংকের ১৯, ন্যাশনাল ব্যাংকের ১৫, ঢাকা ব্যাংকের ছয় ও সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের চার শতাংশ আয় কমেছে। এছাড়া, আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের লোকসান বেড়েছে ৪০ শতাংশ।



শেয়ারবার্তা / শহিদুল ইসলাম

সংবেদনশীল তথ্য এর সর্বশেষ খবর

উপরে