ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ আগস্ট ২০১৮, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৫

ইপিএস বেড়েছে যে ১০টি কোম্পানির

২০১৭ জুলাই ২৬ ২০:০৯:১২
ইপিএস বেড়েছে যে ১০টি কোম্পানির

দ্বিতীয় প্রান্তিকের (জানুয়ারি-জুন’১৭) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১০ কোম্পানি। নিম্নে এগুলোর আর্থিক প্রতিবেদনের চিত্র তুলে ধরা হলো।

প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড

দ্বিতীয় প্রান্তিকে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৩০ টাকা, শেয়ার প্রতি সমন্বিত কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৫৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সমন্বিত সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৮.৩৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৪০ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.৫৪ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিল ১৮.৩৯ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ১.১৪ টাকা।

এদিকে গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন১৬) ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৬০ টাকা। আগের বছর একই সময় চিল ০.২৪ টাকা।

ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড

দ্বিতীয় প্রান্তিকে ইস্টার্ন ব্যাংকের শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.৩১ টাকা, শেয়ার প্রতি সমন্বিত কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৯৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সমন্বিত সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৮.৬৪ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ২.২১ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ২৭.৪১ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিল ২৬.৭৩ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.১০ টাকা।

এদিকে গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন১৬) ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.০৪ টাকা। আগের বছর একই সময় চিল ১.০৪ টাকা।

রূপালী ইন্স্যুরেন্স

দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৩৫ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ১.৩৪ টাকা।

এদিকে গত তিন মাসে কোম্পানিটির ই্পিএস হয়েছে ০.৭০ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ০.৭১ টাকা।

এছাড়া দ্বিতীয় প্রান্তিক শেষে শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৩.৯৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৫৯ টাকা।

মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড

দ্বিতীয় প্রান্তিকে মার্কেন্টাইল ব্যাংকের শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.০৩ টাকা, শেয়ার প্রতি সমন্বিত কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১৫.৩০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সমন্বিত সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২১.১৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১.৩৩ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৩.২৭ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৬, সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ২১.০১ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.৭০ টাকা।

পূবালী ব্যাংক লিমিটেড

দ্বিতীয় প্রান্তিকে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.২০ টাকা এবং এককভাবে ০.৯২ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল যথাক্রমে ০.৭৮ টাকা এবং ০.৭৪ টাকা।

এছাড়া দ্বিতীয় প্রান্তিক শেষে শেয়ার প্রতি সমন্বিত সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৬.৫১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৮.৫০ টাকা।

লংকাবাংলা ফাইন্যান্স লিমিটেড

দ্বিতীয় প্রান্তিকে লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৭১ টাকা। আগের বছর একই সময় ছিল ১.২৯ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় বেড়েছে ০.৪২ টাকা বা ৩২.৫৫ শতাংশ।

এছাড়া আলোচিত সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস)০.৬২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৯.৭৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে এনওসিএফপিএস ছিল ৬.১৬ টাকা (নেগেটিভ) এবং ৩১ ডিসেম্বর ২০১৬, সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১৯.৩৯ টাকা।

এছাড়া গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.৮৯ টাকা।

ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড

দ্বিতীয় প্রান্তিকে ব্যাংকটির ইপিএস ২৬ শতাংশ বেড়েছে। আর গত তিন মাসে ইপিএস বেড়েছে ৮০ শতাংশ। ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

দ্বিতীয় প্রান্তিকে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭.১০ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৫.৬২ টাকা। ইপিএস ২৬ শতাংশ বেড়েছে।

এদিকে গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন) ব্যাংকটির ইপিএস হয়েছে ৪.১৮ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ২.৩২ টাকা। ইপিএস বেড়েছে ৮০ শতাংশ।

এছাড়া দ্বিতীয় প্রান্তিক শেষে শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ৯২.১৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৫৭.৪১ টাকা।

নর্দার্ণ ইন্স্যুরেন্স

দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৬৭ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ১.৬৫ টাকা।

এদিকে গত তিন মাসে কোম্পানিটির ই্পিএস হয়েছে ০.৭৫ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ০.৬৫ টাকা।

এছাড়া দ্বিতীয় প্রান্তিক শেষে শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ২০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৬০ টাকা।

বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স

দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.১৬ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৩২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২০.৬৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১.২৩ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ২.২৯ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৬, সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ২০.৮৪ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.০৭ টাকা।

এছাড়া গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন ১৭) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২৭ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে আয় ছিল ০.৪০ টাকা।

সংবেদনশীল তথ্য এর সর্বশেষ খবর

উপরে