ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ৪ পৌষ ১৪২৫

সপ্তাহজুড়ে শোকজের সম্মুখীন পাঁচ কোম্পানি

২০১৭ জুলাই ১৫ ১৫:৩৪:১১
সপ্তাহজুড়ে শোকজের সম্মুখীন পাঁচ কোম্পানি

অস্বাভাবিক হারে দর বাড়ার কারণে গত সপ্তাহে শোকজের কবলে পড়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৫ কোম্পানি। এগুলো হলো- বঙ্গজ, রংপুর ডেইরি ফুড, ফু-ওয়াং ফুড, দ্য পেনিনসুলা চিটাগাং লিমিটেড এবং কেয়া কসমেকিস । এর মধ্যে কেয়া কসমেটিকস দুইবার তদন্ত নোটিশ পেয়েছ্।ে ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, বঙ্গজ লিমিটেডর শেয়ারের অস্বাভাবিক দর বাড়ার পেছনে কারণ জানতে চেয়ে ডিএসই নোটিশ পাঠায়। এর জবাবে কোম্পানিটি জানায়, কোনো রকম অপ্রকাশিত মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ছাড়াই শেয়ার দর বাড়ছে।

বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ১৯ জুন থেকে কোম্পানিটির শেয়ার দর বেড়ে চলেছে। গত ১৯ জুলাই এ শেয়ারের দর ছিলো ১২২ টাকা। আর ৬ জুন এ শেয়ারের লেনদেন হয়েছে ১৭৪.১০ টাকায়। এ সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার দর বেড়েছে ২৫.১০ টাকা বা ২০.৫৭ শতাংশ। যা অস্বাভাবিক মনে করছে ডিএসই।

রংপুর ডেইরি এন্ড ফুড প্রোডাক্টস লিমিটেডর শেয়ারের অস্বাভাবিক দর বাড়ার পেছনে কারণ জানতে চেয়ে ডিএসই গত ৬ জুলাই নোটিশ পাঠায়। এর জবাবে কোম্পানিটি জানায়, কোনো রকম অপ্রকাশিত মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ছাড়াই শেয়ার দর বাড়ছে।

বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ১৩ জুন থেকে কোম্পানিটির শেয়ার দর বেড়ে চলেছে। গত ১৩ জুন এ শেয়ারের দর ছিলো ১৬.৬০ টাকা। আর ৬ জুলাই এ শেয়ারের লেনদেন হয়েছে ২১.১০ টাকায়। এ সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার দর বেড়েছে ৪.৫০ টাকা বা ২৭.১১ শতাংশ। যা অস্বাভাবিক মনে করছে ডিএসই।

ফু-ওয়াং ফুড লিমিটেডের শেয়ার দর বাড়ার কোনো কারণ নেই। শেয়ারটির অস্বাভাবিক দর বাড়ার পেছনে কারণ জানতে চাইলে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ এমনটাই জানায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জকে (ডিএসই)। বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ২৯ জুন থেকে শেয়ারটির দর বেড়েই চলেছে। এ সময়ে শেয়ারটির দর ১৫ টাকা ৯০ পয়সা থেকে বেড়ে সর্বশেষ ২১ টাকা পর্যন্ত হয়। অর্থাৎ এ সময়ে শেয়ারটির দর বেড়েছে ৫ টাকা ১০ পয়সা বা ৩২ দশমিক ০৭ শতাংশ। আর শেয়ারটির এই দর বাড়াকে অস্বাভাবিক বলে মনে করছে ডিএসই কর্তৃপক্ষ।

ভ্রমণ ও পর্যটন খাতের কোম্পানি দ্য পেনিনসুলা চিটাগাং লিমিটেডের অস্বাভাবিক দর বাড়ার পেছনে কারণ জানতে চেয়ে ডিএসই নোটিস পাঠায়। এর জবাবে কোম্পানিটি জানায়, কোনো রকম মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ছাড়াই শেয়ারটির দর বাড়ছে।

বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ৬ জুলাই থেকে শেয়ারটির দর বেড়েই চলেছে। এ সময়ে শেয়ারটির দর ৩০ টাকা ৩০ পয়সা থেকে বেড়ে সর্বশেষ ৩২ টাকা ৯০ পয়সা পর্যন্ত হয়। অর্থাৎ এ সময়ে শেয়ারটির দর বেড়েছে ২ টাকা ৬০ পয়সা বা ৮ দশমিক ৫৮ শতাংশ। আর শেয়ারটির এই দর বাড়াকে অস্বাভাবিক বলে মনে করছে ডিএসই কর্তৃপক্ষ।
উল্লেখ্য, ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানিটি ২০১৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়।

ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানি কেয়া কসমেটিকস লিমিটেডের শেয়ার দর বাড়ার কোনো কারণ নেই। শেয়ারটির অস্বাভাবিক দর বাড়ার পেছনে কারণ জানতে চাইলে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ এমনটাই জানায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জকে (ডিএসই)।

ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানি কেয়া কসমেটিকস লিমিটেডের অস্বাভাবিক দর বাড়ার পেছনে কারণ জানতে চেয়ে ডিএসই নোটিস পাঠায়। এর জবাবে কোম্পানিটি জানায়, কোনো রকম মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ছাড়াই শেয়ারটির দর বাড়ছে।

বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ২২ জুন থেকে শেয়ারটির দর বেড়েই চলেছে। এ সময়ে শেয়ারটির দর ১৪ টাকা ৪০ পয়সা থেকে বেড়ে সর্বশেষ ১৭ টাকা ৮০ পয়সা পর্যন্ত হয়। অর্থাৎ এ সময়ে শেয়ারটির দর বেড়েছে ৩ টাকা ৪০ পয়সা বা ২৩ দশমিক ৬১ শতাংশ। আর শেয়ারটির এই দর বাড়াকে অস্বাভাবিক বলে মনে করছে ডিএসই কর্তৃপক্ষ।
উল্লেখ্য, ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানিটি ২০১১ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়।
এরপরও অস্বাভাবিক হারে শেয়ার দর বাড়ার কারণে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) আবারও তদন্ত নোটিশ পেয়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানি কেয়া কসমেটিকস লিমিটেড।

জানা যায়, কোম্পানির শেয়ারের অস্বাভাবিক দর বাড়ার পেছনে কারণ জানতে চেয়ে ডিএসই নোটিশ পাঠায়। এর জবাবে কোম্পানিটি জানায়, কোনো রকম অপ্রকাশিত মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ছাড়াই শেয়ার দর বাড়ছে।

বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত কয়েক কার্যদিবস টানা এ কোম্পানিটির শেয়ার দর বেড়ে চলেছে। গত ৬ জুলাই এ শেয়ারের দর ছিলো ১৪.৬০ টাকা। আর ১০ জুন এ শেয়ারের লেনদেন হয়েছে ১৮.২০ টাকায়। এ সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার দর বেড়েছে ৩.৬০ টাকা বা ২৪.৬৬ শতাংশ। যা অস্বাভাবিক মনে করছে ডিএসই।

শেয়ারবার্তা/আশরাফুল আলম

সংবেদনশীল তথ্য এর সর্বশেষ খবর

উপরে