ঢাকা, বুধবার, ২৩ মে ২০১৮, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫

ডিএসই-৩০ ও শরীয়াহ সূচকে বিনিয়োগ বাড়ছে

২০১৭ জুলাই ১১ ০০:১৮:২৬
ডিএসই-৩০ ও শরীয়াহ সূচকে বিনিয়োগ বাড়ছে

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের ডিএসই-৩০ এবং শরীয়াহ সূচকে বিনিয়োগ বাড়ছে। বিদায়ী হিসাব বছর শেষে সূচক দুটি আগের বছরের তুলনায় যথাক্রমে ১৮ শতাংশ এবং ১৭ শতাংশ বেড়েছে।

ডিএসই থেকে জানা যায়, ২০১৬-২০১৭ হিসাব বছরে ডিএসই ৩০ সূচক ৩১২.৯৮ পয়েন্ট বা ১৭.৬৭ শতাংশ বেড়ে ২,০৮৩.৮০ পয়েন্ট এবং ডিএসই শরীয়াহ সূচক ১৮৫.৯১ পয়েন্ট বা ১৬.৭৪ শতাংশ বেড়ে ১,২৯৬.৭৪ পয়েন্ট হয়েছে। গতকাল লেনদেন শেষে এ সূচক দুটি যথাক্রমে ২১০৮.২৭ এবং ১৩১৪.০৭ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

ডিএসই জানায়, ২০১৭ সালের জুন মাসের শেষ ১৫ দিনে ডিএসই ৩০ সূচকে মোট লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ২৮৪ কোটি টাকা। এই মাসেরই প্রথম ১৫ দিনে লেনদেন হয় ১ হাজার ৬৯৩ কোটি টাকা। এর আগের বছর জুন মাসের শেষ ১৫ দিনে লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ৪০৮ কোটি টাকা।

শরীয়াহ সূচকে জুন মাসের শেষ ১৫ দিনে মোট লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৯০৫ কোটি টাকা। এই মাসেরই প্রথম ১৫দিনে লেনদেন হয় ২ হাজার ৫৪২ কোটি টাকা। এর আগের বছর জুন মাসের শেষ ১৫ দিনে লেনদেন হয়েছিল ২ হাজার ২৫০ কোটি টাকা।

ডিএসই জানায়, ২০১৩ সালের ২৮ জানুয়ারি ডিএস৩০ সূচক ১৪৬০.৩০ পয়েন্ট থেকে যাত্রা শুরু হয়। ডিএস৩০ সূচক গণনার ক্ষেত্রে ১০০০ পয়েন্টকে ভিত্তি ধরা হয়েছে। এসঅ্যান্ডপি ডাও জোনসের মেথডলজি অনুযায়ী এই সূচক গণনা করা হয়েছে। বাছাই করা ৩০ মৌলভিত্তির কোম্পানি সূচকের অন্তর্ভুক্ত।

কোম্পানিগুলো হলো: স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস, গ্রামীনফোন, বেক্সিমকো, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ, ন্যাশনাল ব্যাংক, তিতাস গ্যাস, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট, ইউনাইডেট কমার্সিয়াল ব্যাংক, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিকেলস, সামিট পাওয়ার, ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো, লঙ্কাবাংলা ফাইন্যান্স, যমুনা অয়েল, বিএসআরএম স্টীল, বিএসআরএম লি:, আরএকে সিরামিকস, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, মেঘনা পেট্রোলিয়াম, এসিআই, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল, বাটা সু, ব্র্যাক ব্যাংক, সিটি ব্যাংক, আইডিএলসি, রেনেটা, অরিয়ন ফার্মা, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, এমজেএল বাংলাদেশ, ইউনিক হোটেল।

এসঅ্যান্ডপি’র ইসলামী শরীয়াহ বোর্ড ও রেটিং ইন্টেলিজেন্সির সহায়তায় এ সূচক ২০ জানুয়ারি ২০১৪ তারিখে চালু করা হয়েছে। সূচকের ভিত্তি পয়েন্ট হচ্ছে এক হাজার। শরীয়াহ কমিটির অনুমোদন প্রাপ্ত কোম্পানি এ সূচকে স্থান পেয়েছে। শরীয়াহ সূচকে বিজ্ঞাপনী সংস্থা, এলকোহল উত্পাদনকারী এবং ক্লোনিং কোম্পানি ঠাঁই পাবে না। যেসব প্রতিষ্ঠান মোট আয়ের ৬৫ শতাংশের বেশি উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদ বা গল্ফ কোঅপারেশন কাউন্সিলভুক্ত (জিসিসি) দেশ থেকে আয় করে সেগুলো এ সূচকে অন্তর্ভুক্ত হবে। এছাড়া টিভি চ্যানেল, সংবাদপত্র এবং খেলাধুলার চ্যানেল কোম্পানি এ সূচকে অন্তর্ভুক্ত হবে। তবে এ সূচকে কারা রয়েছে তা জানতে হলে ডিএসই-কে নির্দিষ্ঠ ফি দিতে হবে।

আসাম/শেয়ারবার্তা/১০ জুলাই ২০১৭

সংবেদনশীল তথ্য এর সর্বশেষ খবর

উপরে