ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬

টেলিযোগাযোগ ছাড়া সব খাতেই লালবাতি

২০১৯ সেপ্টেম্বর ২০ ১১:৪৭:১২
টেলিযোগাযোগ ছাড়া সব খাতেই লালবাতি

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বৃহস্পতিবার ৭৬ শতাংশ কোম্পানি দর হারিয়েছে। দর বেড়েছে মাত্র ১৩ শতাংশ কোম্পানির। তবে দরপতনের অনুপাতে সূচকের পতন তুলনামূলক কম ছিল। এর নেপথ্যে ভূমিকা রেখেছে গ্রামীণফোন। বৃহস্পতিবার গ্রামীণফোনের প্রায় ৯ শতাংশ বা ২৭ টাকা দরবৃদ্ধি সূচকের বড় পতন ঠেকানোর পাশাপাশি ডিএস৩০ সূচককে পতনের হাত থেকে রক্ষা করেছে। বৃহস্পতিবার টেলিযোগযোগ খাতের গ্রামীণফোন ছাড়াও বাংলাদেশ সাবমেরিন কেব্লসের দরও ইতিবাচক ছিল। তবে অন্য খাতগুলোতে লালবাতি জ্বলেছে। কোনো খাতই মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি। এছাড়া জীবন বিমা খাতের লেনদেন এক শতাংশ বেড়েছে। তবে দুর্বল অতিমূল্যায়িত কোম্পানিগুলোর দরপতন ইতিবাচক।

বৃহস্পতিবার মোট লেনদেনের ১৯ শতাংশ বা ৬৭ কোটি টাকা লেনদেন হয় প্রকৌশল খাতে। এ খাতে ৭৯ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। ন্যাশনাল টিউবসের ১৯ কোটি ২৮ লাখ টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ১৪ টাকা ২০ পয়সা। কোম্পানিটি দরপতনের শীর্ষ দশের তালিকায় উঠে আসে। মুন্নু জুট স্টাফলার্সের প্রায় ১৩ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ১০৬ টাকা ৬০ পয়সা। এছাড়া ন্যাশনাল পলিমারের প্রায় সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে প্রায় চার টাকা। কোম্পানিটি দরবৃদ্ধিতে পঞ্চম অবস্থানে উঠে আসে। ওষুধ ও রসায়ন খাতে লেনদেন হয় ১৮ শতাংশ। এ খাতে ৭৮ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। স্কয়ার ফার্মার সাড়ে ১৪ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ১০ পয়সা। বীকন ফার্মার প্রায় আট কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ৩০ পয়সা। জেএমআই সিরিঞ্জের প্রায় আট কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দরপতন হয় ২৬ টাকা ৭০ পয়সা। এছাড়া রেনাটার প্রায় ছয় কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ১৫ টাকা ৪০ পয়সা। বীমা খাতে ১৩ শতাংশ লেনদেন হয়। এর মধ্যে জীবন বিমা খাতের লেনদেন এক শতাংশ বাড়লেও সাধারণ বিমা খাতে লেনদেন কমেছে চার শতাংশ। বিমা খাতে প্রায় ২৮ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। এ খাতের ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স, প্রভাতি ইন্স্যুরেন্স ও গ্রীনডেল্টা ইন্স্যুরেন্স দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে। ব্যাংক খাতে দরপতনের হার কম ছিল। এক-তৃতীয়াংশ কোম্পানির দর অপরিবর্তিত ছিল। সোয়া চার শতাংশ বেড়ে ইস্টার্ন ব্যাংক দরবৃদ্ধিতে চতুর্থ অবস্থানে উঠে আসে। বস্ত্র খাতে ২৯ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ম্যাকসন্স স্পিনিং দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে। এছাড়া লেনদেনের শীর্ষ দশের মধ্যে থাকা ফরচুন শুজের প্রায় ১৯ কোটি টাকা, ইউনাইটেড পাওয়ারের সাড়ে সাত কোটি টাকা, লিগ্যাসি ফুটওয়্যারের প্রায় সাড়ে সাত কোটি টাকা ও মুন্নু সিরামিকের সোয়া সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়। তবে সব কোম্পানির দরপতন হয়। বিবিধ খাত, পাট ও চামড়াশিল্প খাতে কোনো কোম্পানির দর বাড়েনি।


শেয়ারবার্তা / হামিদ

বাজার বিশ্লেষণ এর সর্বশেষ খবর

উপরে