ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৯ আশ্বিন ১৪২৬

পুঁজিবাজারের মন্দার কারণে আইডিএলসির মুনাফায় পতন

২০১৯ আগস্ট ০১ ২১:২৭:২২
পুঁজিবাজারের মন্দার কারণে আইডিএলসির মুনাফায় পতন

দেশের শীর্ষ আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের মুনাফায় পুঁজিবাজারে মন্দার প্রভাব পড়েছে। চলতি হিসাব বছরের প্রথমার্ধে কোম্পানিটি এককভাবে (Solo) নিট মুনাফায় ১৫ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে সক্ষম হলেও সমন্বিত (Consolidated) মুনাফা প্রায় ৫ শতাংশ কমে গেছে। মন্দার কারণে কোম্পানিটির পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলো (Subsidiary Company) লোকসানের কবলে পড়ায় তা সমন্বিত মুনাফার উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

কোম্পানিটির অর্ধবার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে। আজ ১ আগস্ট, বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে এই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে আইডিএলসি ফাইন্যান্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফ খান পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন।

তিনি ব্যবসার বিভিন্ন বিষয় আলোকপাত করেন। তিনি বলেন, আমাদের ঋণ কার্যক্রম থেকে আয় বৃদ্ধি পাওয়ায় এককভাবে আইডিএলসি ফাইনান্সের নীট মুনাফায় ১৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। কিন্তু পুঁজিবাজারভিত্তিক সাবসিডিয়ারিজগুলোর নিম্নমুখী আয় গ্রুপের নীট মুনাফা কিছুটা কমিয়ে দিয়েছে।

পুঁজিবাজার কিছুটা গতিশীল হলেই ফের সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলো ফের মুনাফায় ফিরবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, পুঁজিবাজারভিত্তিক সাবসিডিয়ারিজগুলো অতীতে কোম্পানির মুনাফার প্রবৃদ্ধিতে সহায়তা করেছে। বর্তমানে এগুলো মুনাফা অর্জনে সক্ষম না হলেও তা সাময়িক। কারণ পুঁজিবাজারের আয়ে সবসময় উত্থান-পতন থাকবেই, তবে তা স্বল্পমেয়াদী। আমরা সুনিশ্চিত যে ভবিষ্যতে আমরা আমাদের পুঁজিবাজারভিত্তিক বিনিয়োগ হতে আয়, গড় আয়ের চেয়ে বেশী করতে পারবো।

মূল আইডিএলসি ফাইন্যান্সের মুনাফার প্রবৃদ্ধি উপযোগী ব্যবসায়িক কৌশল ও দক্ষ টিমওয়ার্কের ফলে সম্ভব হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। এ বিষয়ে তিনি, বাজারে ক্রমবর্ধমান আমানতের সুদের হার এবং তারল্য সংকট থাকা সত্ত্বেও আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের এই প্রবৃদ্ধি, বর্তমান বাজারে আমাদের সুদক্ষ কৌশল এবং দৃঢ়তার পরিচয় দেয়।

আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড সমন্বিতভাবে ১০৫ কোটি ১৩ লাখ টাকা নীট মুনাফা করেছে, যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৫ দশমিক ৪১ শতাংশ কম।

অন্যদিকে এককভাবে আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেড এর নীট মুনাফা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১৫ দশমিক শুন্য ৯ শতাংশ বেড়ে ৯১ কোটি ৯২ লাখ টাকা হয়েছে।

আলোচিত সময়ে সমন্বিতভাবে শেয়ার প্রতি আয় (Consolidated EPS)হয়েছে ২ টাকা ৭৯ পয়সা, যা গতবছর একই সময়ে ছিল ২ টাকা ৯৫ পয়সা।

৩০ জুন, ২০১৯ তারিখে সমন্বিতভাবে আইডিএলসি ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি নিট সম্পদ মূল্য (Consolidated NAVPS) ছিল ৩৫ টাকা ৪৬ পয়সা। গত ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৮ তারিখে যা ছিল হয়েছে যা গত বছর একই সময়ে ছিল ৩৬ টাকা ১৭ পয়সা।

এককভাবে আইডিএলসি ফাইন্যান্সের মুনাফার উচ্চ প্রবৃদ্ধির মূল নিয়ামক ছিল ঋণ ও লিজ ফাইন্যান্সের পোর্টফোলিওর আকার বৃদ্ধি। গত ৬ মাসে মোট ঋণের পরিমাণ ৪ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ বেড়ে ৮ হাজার ৭৩১ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। ঋণ পোর্টফোলিও আকার বাড়াতে প্রধান ভূমিকা রেখেছে ভোক্তা ঋণ। এই খাতে বিতরণকৃত ঋণের পরিমাণ ৮ দশমিক ৩৬ শতাংশ বেড়েছে। এর মধ্যদিয়ে মোট ঋণপোর্টফোলিওতে ভোক্তাঋণের অংশ বেড়ে ৩৫ দশমিক শুন্য ৩ শতাংশে উন্নীত হয়েছে।

সম্প্রতি আইডিএলসির কনজ্যুমার ডিভিশন মধ্যম এবং নিম্ন-মধ্যম আয়ের মানুষের বাড়ি নির্মাণে সহায়তার জন্য ’আইডিএলসি সবার জন্য বাড়ি’ স্কিম চালু করেছে।

কোম্পানির মোট ঋণ পোর্টফোলিওর ৪১ দশমিক ৮৮ শতাংশ এসএমই লোন। এরপরই আছে কর্পোরেট লোন, যার পরিমাণ মোট ঋণের ২৩ দশমিক শুন্য ৯ শতাংশ।

৩০ জুন শেষে কোম্পানির খেলাপি ঋণের (Non Performing Loan) হার ছিল ২ দশমিক ৫৮ শতাংশ।

শেয়ারবার্তা / মামুন

কোম্পানী সংবাদ এর সর্বশেষ খবর

উপরে