ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ১০ বৈশাখ ১৪২৬

অভিষেক দরে ফিরতে পারছে না ৯ আইপিও শেয়ার

২০১৯ ফেব্রুয়ারি ০৯ ১১:২৮:২৬
অভিষেক দরে ফিরতে পারছে না ৯ আইপিও শেয়ার

অভিষেকের দিনে আইপিও শেয়ার থেকে বাজিমাত মুনাফা করছে লটারি বিজয়ীরা। যারা আইপিও শেয়ার পাচ্ছেন, তারা লেনদেনের প্রথমদিনেই নজরকাড়া মুনাফা করছেন। গত এক বছরে বাজারে আসা ১২ আইপিও শেয়ারদর প্রথমদিনে বেড়েছে ৪৬০ শতাংশ পর্যন্ত। যদিও পরবর্তীকালে কোম্পানিগুলোর শেয়ারদর পতনে নেমে এসেছে। বর্তমানে ৩ কোম্পানির শেয়ারদর অভিষেক দরের বেশি লেনদেন হলেও ৯ কোম্পানির শেয়ারদর অভিষেক দরের নিচে চলে এসেছে। এই ৯ কোম্পানির শেয়ারদর অভিষেকের দরে আর ফিরতে পারছে না।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে জানা যায়, গত এক বছরে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছে ১২ কোম্পানি। কোম্পানিগুলো হচ্ছে-অ্যাডভেন্ট ফার্মা, ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিউটিক্যাল, ইন্ট্রাকো সিএনজি, এসকে ট্রিমস, আমান কটন, বসুন্ধরা পেপার, কুইন সাউথ টেক্সটাইল, কাট্টলী টেক্সটাইল, এমএল ডায়িং, ভিএফএস থ্রেড, এসএস স্টিল ও জেনেক্স ইনফোসিস লিমিটেড। এর মধ্যে প্রথম ১০টি কোম্পানি এসেছে ২০১৮ সালে। আর এসএস স্টিল ও জেনেক্স ইনফোসিস এসেছে চলতি ২০১৯ সালে।

সূত্র জানায়, ২০১৮ সালে লেনদেনে আসা কোম্পানির মধ্যে প্রথম কার্যদিবসে সবচেয়ে বেশি দর বাড়তে দেখা যায় অ্যাডভেন্ট ফার্মার। প্রথম দিন ১০ টাকা অভিহিত দরের এ শেয়ার ৪৮ টাকা ৪০ পয়সায় লেনদেন হয়। শতাংশের হিসাবে প্রতিটি শেয়ারদর বাড়ে ৩৮৪ শতাংশ।

পরের অবস্থানে ছিল ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিটিক্যাল। প্রথমদিনে এ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারদর বাড়ে ৩৪৩ শতাংশ। ১০ টাকার শেয়ার লেনদেন হয় ৪৪ টাকা ৩০ পয়সায়। একইভাবে ইন্ট্রাকোর শেয়ারদর বেড়েছিল ৩৩৬ শতাংশ। প্রথম দিনে এ শেয়ার লেনদেন হয় ৪৩ টাকা ৬০ পয়সায়।

তালিকায় থাকা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে কুইন সাউথ টেক্সটাইলের শেয়ার প্রথম দিনে লেনদেন হয় ৪০ টাকায়। শতাংশের হিসাবে দর বাড়ে ৩০৯ শতাংশ। একইভাবে প্রথম দিনে ভিএফএস থ্রেডের শেয়ারদর ২২৫ শতাংশ, এসকে ট্রিমের ২৯০ শতাংশ, সিলভা ফার্মাসিটিক্যালের ১৯০ শতাংশ, কাট্টলী টেক্সটাইলের ১৪৪ শতাংশ, এমএল ডায়িংয়ের ১৪১ শতাংশ, আমান কটনের ১০৬ শতাংশ এবং বসুন্ধরা পেপার মিলের শেয়ারদর বাড়ে ৮২ শতাংশ।

তবে ২০১৯ সালে লেনদেনে আসা এসএস স্টিল ও জেনেক্স ইনফোসিস থেকে আইপিও বিজয়ীরা বেশি মুনাফা পেয়েছে। অভিষেকের দিন এসএস স্টিলের শেয়ারদর ছিল ৫০ টাকা ১০ পয়সা। সেই হিসাবে কোম্পানিটির দর বেড়েছে ৪০১ শতাংশ। অন্যদিকে, প্রথমদিন জেনেক্স ইনফোসিসের শেয়ারদর ছিল ৫৬ টাকা ৫০ পয়সা। প্রথমদিন এর দর বেড়েছে ৪৬৫ শতাংশ।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, ২০১৮ সালে তালিকাভুক্ত হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে আমান কটনের দর ৩৪ টাকা কমে বর্তমানে লেনদেন হচ্ছে ৪০ টাকায়, এ্যাডভেন্ট ফার্মার দর ৯ টাকা কমে লেনদেন হচ্ছে ৩৫ টাকায়, ইন্ট্রাকোর দর ১৭ টাকা কমে লেনদেন হচ্ছে ২৭ টাকায়, বসুন্ধরা পেপারের দর ৫০ টাকা কমে লেনদেন হচ্ছে ৮০ টাকায়। তবে কাট্টলী টেক্সটাইল, কুইনসাউথ টেক্সটাইল ও সিলভা ফার্মার দর অভিষেকের দরের কাছাকাছি দরে লেনদেন হচ্ছে। কেবল ভি্এফেএস ডাইংয়ের শেয়ারদর ৩১ টাকা থেকে বেড়ে ৫৪ টাকা, এমএল ডাইংয়ের শেয়ারদর ২৪ টাকা থেকে বেড়ে ৪০ টাকা এবং এসকে ট্রিমের শেয়ারদর ৪০ টাকা ৯০ পয়সা থেকে বেড়ে ৪৫ টাকার উপরে লেনদেন হচ্ছে।

এদিকে, ২০১৯ সালে লেনদেনে আসা দুই কোম্পানির মধ্যে এসএস স্টিলের শেয়ারদর ৫০ টাকা থেকে কমে ৩৮ টাকার ঘরে লেনদেন হচ্ছে। আর গত সপ্তাহের বুধবার লেনদেনে আসা জেনেক্স ইনফোসিস প্রথমদিনের দর ৫৬ টাকা ৫০ পয়সা থেকে কমে ২য় দিন বৃহস্পতিবার ৫৫ টাকা ৪০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে।

পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, যেকোন আইপিও শেয়ার আসার আগে বাজারে নানা গুঞ্জন ছড়ানে হয়। ফলে বাজারে এসেই নতুন কোম্পানিগুলোর শেয়ারদর আকাশচুম্বী হয়ে পড়ে। তারপর দিন যত যায়, কোম্পানিগুলোর শেয়ারদরও ততো কমতে থাকে। এরপর কোম্পানিগুলোর শেয়ারদর কখনো অভিষেকের দরে ফিরতে পারে না।

তাঁদের মতে, বাজারে আসা কোম্পানিগুলোর মধ্যে সিংহভাগ কোম্পানিই দুর্বল চরিত্রের। ফলে প্রথমে বাজারে্ এসে কোম্পানিগুলো যেভাবে ভাবমূর্তি তৈরী করে নেয়, পরবর্তীতে সেই ভাবমূর্তি বজায় রাখতে পারে না। ফলে ধীরে ধীরে কোম্পানিগুলোর প্রতি বিনিয়োগকারীদের আস্থা কমে যায় এবং কোম্পানিগুলোর শেয়ারদর পতন প্রবণতায় থাকে।


শেয়ারবার্তা / শহিদুল ইসলাম

সংবেদনশীল তথ্য এর সর্বশেষ খবর

উপরে