ঢাকা, শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

জানুয়ারিতে বিদেশিদের নুতন বিনিয়োগ ১৭৫ কোটি টাকা

২০১৯ ফেব্রুয়ারি ০৮ ০৬:৪৬:১৫
জানুয়ারিতে বিদেশিদের নুতন বিনিয়োগ ১৭৫ কোটি টাকা

চলতি বছরের প্রথম মাস জানুয়ারিতে সম্মিলিতভাবে বিদেশি ও প্রবাসী বাংলাদেশি বিনিয়োগকারীরা দেশের শেয়ারবাজারে নিট ১৭৫ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন। তবে এ সময়ে শেয়ারবাজারের লেনদেনে তাদের অংশ কমেছে। গত ডিসেম্বরে মোট লেনদেনে ৩ দশমিক ৪১ শতাংশ ছিল বিদেশিদের, তা জানুয়ারিতে এসে নেমেছে ১ দশমিক ৮২ শতাংশে।

তথ্য বিশ্লেষণে জানা যায়, সর্বশেষ জাতীয় নির্বাচনের ডামাডোলের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ব্যাংক ও বন্ডের সুদহার বৃদ্ধি এবং টাকার মান পড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের একটা অংশ অক্টোবর থেকে ডিসেম্বরে তাদের বিনিয়োগ প্রত্যাহার করেছিলেন। টাকার অঙ্কে এর পরিমাণ ছিল নিট ৩২৫ কোটি টাকা।

বিদেশিদের বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ প্রত্যাহারের কারণে গ্রামীণফোন, স্কয়ার ফার্মাসহ বহুজাতিক কোম্পানির বেশিরভাগ শেয়ার দর হারিয়েছিল। কিন্তু জানুয়ারি মাস থেকে এসব শেয়ারের দর ফের বাড়তে দেখা যাচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, বিদেশিদের বিক্রির তুলনায় বেশি শেয়ার কেনার প্রভাবেই এমনটি হচ্ছে।

প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, প্রধান শেয়ারবাজার ডিএসইর মাধ্যমে জানুয়ারিতে মোট ৪৯৫ কোটি ১৭ লাখ টাকা মূল্যের শেয়ার কিনেছেন বিদেশি ও প্রবাসী বিনিয়োগকারীরা। বিপরীতে ৩১৯ কোটি ৯০ লাখ টাকা মূল্যের শেয়ার বিক্রি করেছেন। অর্থাৎ গত মাসে তারা নিট ১৭৫ কোটি ২৭ লাখ টাকার শেয়ার কিনেছেন। তবে তারা কোন শেয়ার বিক্রি করেছেন এবং কোনটি কিনেছেন, সে তথ্য এখনও পাওয়া যায়নি।

ডিএসইতে জানুয়ারি মাসে কেনাবেচা হওয়া শেয়ারের মোট বাজার মূল্য ছিল ২২ হাজার ৩৪৮ কোটি টাকা। কেনা ও বেচা উভয় দিক বিবেচনায় নিলে এর পরিমাণ দ্বিগুণ। এ লেনদেনে বিদেশিদের কেনার পরিমাণ ছিল মোটের ২ দশমিক ২২ শতাংশ। মোট বিক্রিতে তাদের অংশ ছিল মোটের ১ দশমিক ৪৩ শতাংশ।

তবে জানুয়ারি মাসে বিদেশিরা যতটুকু শেয়ার কেনাবেচা করেছেন, তার প্রায় পুরোটাই হয়েছে ডিএসইর মাধ্যমে। দেশের দ্বিতীয় শেয়ারবাজার সিএসইর মাধ্যমে তারা মাত্র দুই লাখ ৭৪ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন করেন। ২৭৪ টাকা দরে অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজের মাত্র এক হাজার শেয়ার কেনাবেচা করেন এক বিদেশি বিনিয়োগকারী।

গত বছরের পুরোটা সময় বিদেশি ও প্রবাসী বাংলাদেশি বিনিয়োগকারীরা শুধু ডিএসইর মাধ্যমে ৯ হাজার ৫৮৬ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা করেছিলেন। এর মধ্যে চার হার ৪৯৬ কোটি টাকার শেয়ার কেনেন এবং বিক্রি করেন প্রায় পাঁচ হাজার ৯০ কোটি টাকার শেয়ার। ডিএসইতে গত বছর সর্বমোট এক লাখ ৩৩ হাজার ৩৬৪ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়। এ লেনদেনে বিদেশিদের অংশ ছিল মোটের ৩ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

শেয়ারবার্তা / মামুন

সংবেদনশীল তথ্য এর সর্বশেষ খবর

উপরে