ঢাকা, রবিবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

শেয়ারবাজারে ১৮ নেতার নজরকাড়া বিনিয়োগ

২০১৮ ডিসেম্বর ০৪ ১৮:৩৪:০১
শেয়ারবাজারে ১৮ নেতার নজরকাড়া বিনিয়োগ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী প্রার্থীরা নির্বাচন কমিশনে তাদের আয় ব্যয়ের হিসাব (হলফনামা) জমা দিয়েছেন। এতে আওয়ামী লীগ, বিএনপি এবং জাতীয় পার্টির বেশ কিছু নেতার শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ থাকার তথ্য পাওয়া গেছে।

আওয়ামী লীগ :

হলফনামায় দেখা যায়, আওয়ামী লীগ থেকে ঢাকা-১ আসনে মনোনয়ন পাওয়া বেক্সিমকো গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমানের শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয়—এমন সব কোম্পানিতে বিনিয়োগ রয়েছে ২৫০ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। তাঁর নগদ টাকা ২ কোটি ১০ লাখ এবং ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা আছে ২ কোটি ৮৬ লাখ ৭০ হাজার টাকা। এমনিতেই শেয়ারবাজারের অন্যতম আলোচিত নাম সালমান এফ রহমান। শেয়ারবাজারের দুই কেলেঙ্কারির সময়েই তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল।

ঢাকা-১০ আসনে মনোনয়ন পাওয়া শেখ ফজলে নূর তাপসের শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ৪৩ কোটি ২৭ লাখ ৫৫ হাজার টাকা এবং সঞ্চয়পত্র বা স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগ ৪৩ কোটি ২০ লাখ টাকা। শেয়ারবাজার থেকে তাঁর আয় ৮ কোটি ১০ লাখ টাকা। তাঁর নগদ আছে ৬ কোটি টাকার বেশি এবং ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা টাকা ৯ কোটি ৭৮ লাখ টাকা। ২০১৪ সালে ফজলে নূরের শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ছিল ৩২ কোটি ১৪ লাখ টাকার এবং স্ত্রীসহ দুজনের সঞ্চয়পত্র ছিল ৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকার।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, তাঁর স্ত্রী ও নির্ভরশীল পুত্রের নামে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বা তালিকাভুক্ত নয়—এমন কোম্পানিতে ৬৩ কোটি টাকা বিনিয়োগ রয়েছে। তিনজনের ৯ কোটি ৭০ লাখ টাকা রয়েছে ব্যাংকে ও নগদে। ২০১৩ সালে শাহরিয়ার আলমের শেয়ারবাজারে কোনো বিনিয়োগ ছিল না।

ঢাকা-১১ আসনে মনোনয়ন পাওয়া এ কে এম রহমত উল্লাহ ও তাঁর স্ত্রীর শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ প্রায় ২৪ কোটি টাকা। ২০১৩ সালে তাঁর নিজের নামে ছিল ৯ কোটি ৫৬ লাখ টাকা ও স্ত্রীর নামে ২ কোটি ৯০ লাখ টাকার শেয়ার।

মাদারীপুর-১ থেকে মনোনয়ন পাওয়া নূর-ই-আলম চৌধুরী এবং তাঁর স্ত্রীর একটি ব্যাংক ও একটি প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ আছে ৩৭ কোটি টাকা। ২০১৩ সালে শেয়ারবাজারে অতালিকাভুক্ত কোম্পানিতে তাঁদের বিনিয়োগ ছিল ২১ কোটি টাকা।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেনের মোট আয়ের মধ্যে শেয়ারবাজার থেকেই বেশি, ৬৬ কোটি ২২ লাখ টাকা। ২০১৩ সালে শেয়ারবাজারে তাঁর কোনো বিনিয়োগ ছিল না। ৯ কোটি ৭ লাখ টাকার বিনিয়োগ ছিল সঞ্চয়পত্রে।

পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বা তালিকাভুক্ত নয়—এমন বিনিয়োগ ৭ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। তাঁর স্ত্রীর এ খাতে বিনিয়োগ আরও বেশি, ১০ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। স্থায়ী আমানত বা সঞ্চয়পত্রে অবশ্য দুজনের বিনিয়োগ প্রায় ৪৯ কোটি টাকা। ২০১৩ সালে তাঁর শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ছিল ১৪ কোটি ২০ লাখ ও স্ত্রীর নামে ১৭ কোটি ২১ লাখ টাকার। সেবার সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ ছিল ৩৮ কোটি টাকা।
ঝালকাঠি-১ আসনে মনোনয়ন পাওয়া বজলুল হক হারুন ও তাঁর স্ত্রী মনিরা হারুনের শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ২২ কোটি টাকা, সঞ্চয়পত্রে ৫ কোটি টাকা। ২০১৩ সালে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ছিল ১৪ কোটি ৯০ লাখ টাকা, সঞ্চয়পত্র ছিল ৩ কোটি ৬৫ লাখ টাকার।

জামালপুর-৩ আসনে মনোনয়ন পাওয়া বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম ও তাঁর স্ত্রীর শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ রয়েছে ৪ কোটি ৯২ লাখ টাকা। ২০১৩ সালের তুলনায় তাঁদের বিনিয়োগ তেমন বাড়েনি।

সাবের হোসেন চৌধুরী ও তাঁর স্ত্রীর ১৩ কোটি টাকার বিনিয়োগ রয়েছে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বা তালিকাভুক্ত নয় এমন কোম্পানিতে। ২০১৩ সালে শেয়ারবাজারে তাঁদের বিনিয়োগ ছিল ৯ কোটি ৭৬ লাখ টাকা।

কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীর শেয়ারবাজারে ৬ কোটি ২৫ লাখ এবং সঞ্চয়পত্র ও স্থায়ী আমানত রয়েছে ১ কোটি ৫ লাখ টাকার। ২০১৩ সালে শেয়ারবাজারে তাঁর বিনিয়োগ ছিল ১ কোটি ৪ লাখ টাকা আর সঞ্চয়পত্র ১ কোটি ৫১ লাখ টাকার।

সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী আ হ ম রুহুল হক ও তাঁর স্ত্রীর শেয়ারবাজারে ৩ কোটি ৬০ লাখ ও সঞ্চয়পত্রে ৪ কোটি ৫০ লাখ টাকার মতো বিনিয়োগ রয়েছে। ঢাকা-১২ আসনের প্রার্থী হাজি মো. সেলিম ও তাঁর স্ত্রীর শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ৬২ কোটি ৭২ লাখ টাকা।

বিএনপি :

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের (ঢাকা-৮) নামে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ২৯ কোটি ৩৯ লাখ ৪৩ হাজার ৪৮৫ টাকা। এ ছাড়া তাঁর স্ত্রী আফরোজা আব্বাসের নামে শেয়ারবাজারে ১০ কোটি ৪ লাখ টাকা ও সঞ্চয়পত্রে রয়েছে ২ কোটি ১১ লাখ টাকার বিনিয়োগ। এর বাইরে মির্জা আব্বাসের হাতে নগদ ৩ কোটি ৬২ লাখ এবং আফরোজা আব্বাসের হাতে নগদ ২ কোটি ৩০ লাখ টাকা রয়েছে।

নোয়াখালী-৫ আসন থেকে বিএনপির মনোনয়ন পাওয়া মওদুদ আহমদের শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ৩৩ লাখ ২০ হাজার টাকা। তবে প্রায় ১০ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র কেনা আছে তাঁর।

স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য চট্টগ্রাম-১১ আসনের প্রার্থী আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ১ কোটি ৯৭ লাখ ৪৩ হাজার টাকা, সঞ্চয়পত্র আছে ১ কোটি ৫৬ লাখ টাকার ও ব্যাংকের আছে ১০ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।

শেয়ারবাজারে চট্টগ্রাম-৮ আসনের প্রার্থী সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খানের বিনিয়োগ আছে ৩৯ কোটি ৬৯ লাখ ৭৪ হাজার ১২৯ টাকা। আর হাতে নগদ রয়েছে আড়াই কোটি টাকা এবং ব্যাংকে জমা আছে ৩৩ লাখ ৫৬ হাজার টাকা।

ঢাকা-৪ আসন থেকে প্রার্থী হতে চাওয়া বিএনপির সাবেক সাংসদ সালাহ উদ্দিন আহমেদের শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ ১ কোটি ১৮ লাখ টাকা আর ব্যাংক হিসাবে জমা রয়েছে ৩৮ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।

জাতীয় পার্টি :

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ রয়েছে ৪৪ কোটি টাকা। ব্যাংকে জমা রয়েছে ৩৭ লাখ ৬৯ হাজার ৪৬ টাকা। এরশাদের হাতে নগদ রয়েছে ২৮ লাখ ৫৩ হাজার ৯৯৮ টাকা, তাঁর স্ত্রী রওশন এরশাদের হাতে নগদ রয়েছে ২৬ কোটি ২০ লাখ ২৯ হাজার ২৩৩ টাকা। সঞ্চয়পত্রে এরশাদের বিনিয়োগ আছে ৯ কোটি ২৯ লাখ টাকা ও রওশন এরশাদের ৮ কোটি ২৭ লাখ ৭ হাজার ১৭ টাকা। ২০১৩ সালে এরশাদের শেয়ার ছিল ৪০ কোটি টাকার এবং সঞ্চয়পত্র ৭ কোটি ৫০ লাখ টাকার।

জাতীয় পার্টির সদ্য অপসারিত মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদারের নিজের নামে ৭ কোটি ৭০ লাখ ও স্ত্রীর নামে ১ কোটি ৬৫ লাখ টাকা শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ দেখিয়েছেন। সঞ্চয়পত্রে তাঁর নিজের নামে বিনিয়োগ ৫ কোটি টাকা। ১৩ কোটি টাকা নগদ রয়েছে তাঁর। ২০১৩ সালে রুহুল আমিন হাওলাদারের শেয়ারে বিনিয়োগ ছিল ৭ কোটি টাকা, স্ত্রীর ছিল ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা। সঞ্চয়পত্রে কোনো বিনিয়োগ ছিল না। তবে ব্যাংকে ছিল ৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

সংবেদনশীল তথ্য এর সর্বশেষ খবর

উপরে