ঢাকা, শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

শেয়ারবাজারের বেশির ভাগ ব্যাংকের আর্থিক অবস্থার অবনতি

২০১৮ নভেম্বর ০৯ ০৭:০২:৫৫
শেয়ারবাজারের বেশির ভাগ ব্যাংকের আর্থিক অবস্থার অবনতি

শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বেশির ভাগ ব্যাংকের আর্থিক অবস্থার অবনতি হয়েছে। তালিকাভুক্ত ৩০টি ব্যাংকের মধ্যে মুনাফা কমেছে ১৮টি ব্যাংকের। নগদ অর্থসংকটে পড়েছে ১৩টি। সম্পদ কমেছে ১০টির। একটি ব্যাংক লোকসানের নিমজ্জিত। চলতি হিসাব বছরের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর মাসে ব্যাংকগুলোর চিত্র এটি।

জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর সময়ের আর্থিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, চলতি বছরের নয় মাসের ব্যবসায় নগদ অর্থসংকটে পড়েছে-এবি ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, ঢাকা ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক, যমুনা ব্যাংক, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক, সাউথ ইস্ট ব্যাংক ও ইউসিবি।

এর মধ্যে ন্যাশনাল ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক ও ইউসিবি ব্যাংক চলতি বছরে নতুন করে নগদ অর্থসংকটে পড়েছে। বাকি ব্যাংকগুলো গত বছরের নয় মাসের হিসাবেও নগদ অর্থসংকটে ছিল। তবে গত বছর অর্থসংকটে থাকলেও ব্যাংক এশিয়া, সিটি ব্যাংক, ইস্টার্ন ব্যাংক, এনসিসি ব্যাংক ও শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক সংকট থেকে বেরিয়ে এসেছে।

এদিকে, জুন মাস শেষে ১৩টি ব্যাংকের পরিচালন নগদ প্রবাহ বা অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো ঋণাত্মক হয়ে পড়েছে। পরিচালন নগদ প্রবাহ ঋণাত্মক হয়ে যাওয়ার অর্থ ওই প্রতিষ্ঠানে নগদ অর্থের সংকট সৃষ্টি হওয়া। যে প্রতিষ্ঠানের ক্যাশ ফ্লো যত বেশি ঋণাত্মক, ওই প্রতিষ্ঠানের নগদ অর্থের সংকট তত বেশি।

চলতি বছরের সেপ্টেম্বর শেষে সবচেয়ে বেশি নগদ অর্থসংকটে রয়েছে রূপালী ব্যাংক। জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর সময়ে ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি পরিচালন নগদ প্রবাহ দাঁড়িয়েছে ঋণাত্মক ৩২ টাকা ৯০ পয়সা। দ্বিতীয় স্থানে থাকা এবি ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি পরিচালন নগদ প্রবাহ দাঁড়িয়েছে ঋণাত্মক ১১ টাকা ৭৯ পয়সা। এর পরেই রয়েছে বেসরকারি খাতের সবচেয়ে বড় ব্যাংক ইসলামী ব্যাংক। এই ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি পরিচালন নগদ প্রবাহ দাঁড়িয়েছে ঋণাত্মক ১১ টাকা ১৬ পয়সা।

ক্যাশ ফ্লো ঋণাত্মক ব্যাংকের চিত্র :

ব্যাংকের নাম

শেয়ারপ্রতি পরিচালন নগদ প্রবাহ

২০১৮ সালের জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর

২০১৭ সালের জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর

এবি ব্যাংক

ঋণাত্মক ১১ টাকা ৭৯ পয়সা

ঋণাত্মক ১১ টাকা ৫৭ পয়সা

ঢাকা ব্যাংক

ঋণাত্মক ৩ টাকা ৭ পয়সা

ঋণাত্মক ৬ টাকা ৯৪ পয়সা

এক্সিম ব্যাংক

ঋণাত্মক ৮ টাকা ৭৯ পয়সা

ঋণাত্মক ৪ টাকা ৪৩ পয়সা

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক

ঋণাত্মক ৬ টাকা ১৪ পয়সা

ঋণাত্মক ৯ টাকা ৪৭ পয়সা

আইসিবি ইসলামী ব্যাংক

ঋণাত্মক ২৬ পয়সা

ঋণাত্মক ৮ পয়সা

ইসলামী ব্যাংক

ঋণাত্মক ১১ টাকা ১৬ পয়সা

ঋণাত্মক ১১ টাকা ৬০ পয়সা

যমুনা ব্যাংক

ঋণাত্মক ৩ টাকা ২৭ পয়সা

ঋণাত্মক ৬ টাকা ২১ পয়সা

মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক

ঋণাত্মক ৩ টাকা ২১ পয়সা

ঋণাত্মক ৯ টাকা ১৮ পয়সা

ন্যাশনাল ব্যাংক

ঋণাত্মক ৩ টাকা ৭৩ পয়সা

৩ টাকা ৬১ পয়সা

রূপালী ব্যাংক

ঋণাত্মক ৩২ টাকা ৯০ পয়সা

৪৬ টাকা ১২ পয়সা

সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক

ঋণাত্মক ৫ টাকা ৬২ পয়সা

৯ টাকা ৯৭ পয়সা

সাউথ ইস্ট ব্যাংক

ঋণাত্মক ৪ টাকা ১ পয়সা

ঋণাত্মক ৫ টাকা ৬৬ পয়সা

ইউসিবি

ঋণাত্মক ৬ টাকা ০৪ পয়সা

১১ টাকা ৮৮ পয়সা

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একটি প্রতিষ্ঠানের পরিচালন নগদ প্রবাহ গুরুত্বপূর্ণ ইন্ডিকেটর। এতে প্রতিষ্ঠানের তারল্যের চিত্র ফুটে ওঠে। পরিচালন নগদ প্রবাহ ঋণাত্মক হলে সেই প্রতিষ্ঠানের নগদ অর্থের সংকট সৃষ্টি হয়। শেয়ারহোল্ডারদের জন্য নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা অসম্ভব হয়ে পড়ে। এ অবস্থা দীর্ঘদিন অব্যাহত থাকলে প্রতিষ্ঠানের সংকট বাড়তে থাকে। যে প্রতিষ্ঠানের পরিচালন নগদ প্রবাহ যত বেশি ঋণাত্মক, ওই প্রতিষ্ঠানের সংকট তত বেশি।

এ বিষয়ে অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, ‘আমাদের ব্যাংকের অপারেটিং ক্যাশ ফ্লোর হিসাবটা সঠিক নয়। কারণ ক্যাশ ফ্লোতে লোন সংযুক্ত করা হচ্ছে। একটি ব্যাংকের লোন কখনও অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো নয়। যে কারণে একটি ব্যাংকের ক্যাশ ফ্লো দেখে ওর সত্যিকার চিত্র বোঝা কঠিন। তবে কোনো প্রতিষ্ঠানের ক্যাশ ফ্লো ঋণাত্মক হলে অবশ্যই নগদ অর্থসংকট দেখা দেবে।’

এদিকে আগের বছরের তুলনায় মুনাফা কমেছে ১৮টি ব্যাংকের। এ তালিকায় রয়েছে- এবি ব্যাংক, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক, সিটি ব্যাংক, ঢাকা ব্যাংক, ইস্টার্ন ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক, আইএফআইসি, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, ওয়ান ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, ট্রাস্ট ব্যাংক, ইউসিবি ও উত্তরা ব্যাংক।

এর মধ্যে এবি ব্যাংক, ঢাকা ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক এবং ইউসিবি নগদ অর্থসংকটেও রয়েছে। এছাড়া এবি ব্যাংক, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক, সিটি ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, ওয়ান ব্যাংক এবং ট্রাস্ট ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য কমেছে।

আগের বছরের তুলনায় চলতি বছরে সবচেয়ে বেশি মুনাফা কমেছে এক্সিম ব্যাংকের। প্রতিষ্ঠানটির মুনাফা কমে ১১ ভাগের এক ভাগে দাঁড়িয়েছে। চলতি বছরের নয় মাসে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মুনাফা হয়েছে মাত্র ১১ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল এক টাকা ২৪ পয়সা। দ্বিতীয় স্থানে থাকা স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের মুনাফা ৭০ পয়সা থেকে কমে দাঁড়িয়েছে ১২ পয়সা। দুই টাকা ৫৪ পয়সা থেকে কমে ৭৮ পয়সা শেয়ারপ্রতি মুনাফা নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ওয়ান ব্যাংক।

মুনাফা কমে যাওয়া ব্যাংকের চিত্র:

ব্যাংকের নাম

শেয়ারপ্রতি মুনাফা

২০১৮ সালের জানুয়ারি-জুন

২০১৭ সালের জানুয়ারি-জুন

এবি ব্যাংক

৪১ পয়সা

৬৪ পয়সা

আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক

৭৪ পয়সা

১ টাকা ৭১ পয়সা

সিটি ব্যাংক

২ টাকা ৩২ পয়সা

২ টাকা ৭৯ পয়সা

ঢাকা ব্যাংক

১ টাকা ২৬ পয়সা

১ টাকা ৩৩ পয়সা

ইস্টার্ন ব্যাংক

২ টাকা ৮৮ পয়সা

৩ টাকা ৩৪ পয়সা

এক্সিম ব্যাংক

১১ পয়সা

১ টাকা ২৪ পয়সা

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক

৫৮ পয়সা

৯৭ পয়সা

আইসিবি ইসলামী ব্যাংক

ঋণাত্মক ৫৪ পয়সা

ঋণাত্মক ৪২ পয়সা

আইএফআইসি

৫৯ পয়সা

১ টাকা ৩ পয়সা

মার্কেন্টাইল ব্যাংক

২ টাকা ৭০ পয়সা

২ টাকা ৭৮ পয়সা

ওয়ান ব্যাংক

৭৮ পয়সা

২ টাকা ৫৪ পয়সা

প্রাইম ব্যাংক

১ টাকা ১৫ পয়সা

১ টাকা ৩০ পয়সা

রূপালী ব্যাংক

৫০ পয়সা

৭২ পয়সা

সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক

৮৬ পয়সা

৯০ পয়সা

স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক

১২ পয়সা

৭০ পয়সা

ট্রাস্ট ব্যাংক

১ টাকা ৭৯ পয়সা

৩ টাকা ১৬ পয়সা

ইউসিবি

১ টাকা ৭৮ পয়সা

২ টাকা ৫০ পয়সা

উত্তরা ব্যাংক

২ টাকা ৬১ পয়সা

২ টাকা ৭৬ পয়সা

প্রবলেম ব্যাংক হিসেবে পরিচিত আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের নগদ অর্থসংকট ও লোকসানের পাশাপাশি সম্পদ মূল্যও ঋণাত্মক হয়ে পড়েছে। প্রতিষ্ঠানটির প্রতিটি শেয়ারের বিপরীতে সম্পদ মূল্য ঋণাত্মক আছে ১৬ টাকা ২৮ পয়সা। আগের বছরে একই সময়ে ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি সম্পদ ছিল ঋণাত্মক ১৫ টাকা ৫৪ পয়সা। অর্থাৎ সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির সম্পদের তুলনায় দায় বেড়েই চলেছে।

এছাড়া চলতি বছরের সেপ্টেম্বর শেষে আগের বছরের তুলনায় শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য কমে যাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে- এবি ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৩২ টাকা ৭ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৩২ টাকা ২৮ পয়সা। আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য ১৯ টাকা ৮৮ পয়সা থেকে কমে দাঁড়িয়েছে ১৯ টাকা ৮৮ পয়সা। সিটি ব্যাংকের ২৭ টাকা ৪ পয়সা থেকে কমে ২৪ টাকা ৮৯ পয়সা দাঁড়িয়েছে।এক্সিম ব্যাংকের ১৮ টাকা ৪৯ পয়সা থেকে কমে ১৮ টাকা ৪৪ পয়সা, মার্কেন্টাইল ব্যাংকের ২২ টাকা ৮ পয়সা থেকে কমে ২২ টাকা ৭ পয়সা, ওয়ান ব্যাংকের ১৮ টাকা ৫৫ পয়সা থেকে কমে ১৭ টাকা ৮৮ পয়সা, পূবালী ব্যাংকের ২৯ টাকা ৯১ পয়সা থেকে কমে ২৬ টাকা ৩০ পয়সা, সাউথ ইস্ট ব্যাংকের ২৯ টাকা ৩৫ পয়সা থেকে কমে ২৬ টাকা ৮০ পয়সা, ট্রাস্ট ব্যাংকের ২২ টাকা ৪১ পয়সা থেকে কমে ২২ টাকা ২৪ পয়সায় দাঁড়িয়েছে।

শেয়ারবার্তা / শহিদুল ইসলাম

সংবেদনশীল তথ্য এর সর্বশেষ খবর

উপরে