ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

আইসিবির বন্ডে ব্যাংকের বিনিয়োগকে পুঁজিবাজার এক্সপোজার থেকে অব্যাহতি

২০১৮ অক্টোবর ১০ ০৬:৪৮:২৩
আইসিবির বন্ডে ব্যাংকের বিনিয়োগকে পুঁজিবাজার এক্সপোজার থেকে অব্যাহতি

ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) ইস্যু করা বন্ডে ব্যাংকের বিনিয়োগকে পুঁজিবাজার এক্সপোজার থেকে অব্যাহতি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এর ফলে যেসব ব্যাংক আইসিবির বন্ডে বিনিয়োগ করবে, তাদের ক্ষেত্রে ব্যাংক কোম্পানি আইনের সংশ্লিষ্ট ধারা প্রযোজ্য হবে না। গতকাল কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ (বিআরপিডি) থেকে এ-সংক্রান্ত একটি চিঠি সব তফসিলি ব্যাংকের এমডিদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক গভর্নর ফজলে কবির স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে, ব্যাংক কোম্পানি আইন ১৯৯১-এর ১২১ ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে আগ্রহী ব্যাংকগুলোকে আইসিবি কর্তৃক ইস্যু করা সাত বছর মেয়াদি ২ হাজার কোটি টাকার সাব-অর্ডিনেটেড বন্ডে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ব্যাংক কোম্পানি আইন ১৯৯১-এর ২৬ক(১)খ ধারার বিধান পরিপালন থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হলো। এ অব্যাহতি প্রদানের কারণে ওই সাব-অর্ডিনেটের বন্ডে বিনিয়োগ করা অর্থ সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের পুঁজিবাজার বিনিয়োগপত্র কোষের অন্তর্ভুক্ত হবে না।

উল্লেখ্য, এর আগে গত মাসের ২৬ তারিখে বিআরপিডি থেকে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিবের কাছে আইসিবির বন্ডে ব্যাংকের বিনিয়োগকে পুঁজিবাজার এক্সপোজার থেকে অব্যাহতি প্রদানের বিষয়ে সরকারের অনুমোদন চেয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছিল। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) তথ্যানুসারে, চলতি বছরের এপ্রিলে আইসিবির পর্ষদ ২ হাজার কোটি টাকার ৭ বছর মেয়াদি পূর্ণ অবসায়নযোগ্য এ সাব-অর্ডিনেট বন্ড ইস্যুর সিদ্ধান্ত নেয়। কুপন বিয়ারিং নন-কনভার্টেবল এ বন্ডটি সংশ্লিষ্ট নিয়ন্ত্রকদের অনুমোদন সাপেক্ষে ইস্যু করা হবে বলে জানানো হয়। প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে ইস্যুকৃত এ বন্ডটি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হবে না। বন্ডটির ফেসভ্যালু ও ইস্যুভ্যালু ইউনিটপ্রতি ১ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এক্ষেত্রে একজন ব্যক্তি বিনিয়োগকারী ন্যূনতম ১ কোটি টাকায় একটি বন্ড কিনতে পারবে। আর প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা সর্বনিম্ন পাঁচটি বন্ড ৫ কোটি টাকায় কিনতে পারবে। ২ বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ ৭ বছর মেয়াদি এ বন্ডটির সুদের হার নির্ধারণ করা হয়েছে ৯ শতাংশ। তবে বিলম্বিত অবসায়নের ক্ষেত্রে বার্ষিক অতিরিক্ত ২ শতাংশ হারে সুদ প্রযোজ্য হবে। হস্তান্তরযোগ্য এ বন্ডটির সুদ ষাত্মাসিক ভিত্তিতে পরিশোধ করা হবে। গত জুলাইয়ে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি আইসিবিকে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য এ বন্ড ইস্যুর অনুমোদন দিয়েছে।

শেয়ারবার্তা / শহিদুল ইসলাম

সংবেদনশীল তথ্য এর সর্বশেষ খবর

উপরে