ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮, ৩০ আশ্বিন ১৪২৫

সূচক ইতিবাচক হলেও বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতন

২০১৮ অক্টোবর ১০ ০৬:১২:৫৮
সূচক ইতিবাচক হলেও বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতন

সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবস মঙ্গলবার শিরভাগ শেয়ারের দরপতন সত্ত্বেও উভয় বাজারে সূচক ইতিবাচক অবস্থানে ছিল। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন ও বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতন সত্ত্বেও সবকটি সূচক ইতিবাচক অবস্থানে ছিল। মঙ্গলবার লেনদেনের প্রথম ৫০ মিনিটে প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬০ পয়েন্ট ইতিবাচক অবস্থানে চলে যায়। এরপর বিক্রির চাপ বাড়লে সূচক ধীরে ধীরে কিছুটা নেমে গেলেও আগের দিনের থেকে ১৪ পয়েন্ট ইতিবাচক অবস্থানে থেকে লেনদেন শেষ হয়। মঙ্গলবার ডিএসইতে মাত্র ৩৩ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে। কমেছে ৫৫ শতাংশ শেয়ারদর। বাকি দুটি সূচকও ইতিবাচক অবস্থানে থেকে লেনদেন শেষ হয়। অন্যদিকে চিটাগাং স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) সবকটি সূচক ইতিবাচক ছিল। লেনদেন ও বেশিরভাগ শেয়ারের দর কমেছে।

বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, মঙ্গলবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১৪ দশমিক ৮৬ পয়েন্ট বা দশমিক ২৭ শতাংশ বেড়ে পাঁচ হাজার ৪৫৫ দশমিক ৮১ পয়েন্টে অবস্থান করে।

ডিএসইএস বা শরিয়াহ্ সূচক ১৩ দশমিক ৯৫ পয়েন্ট বা এক দশমিক ১০ শতাংশ বেড়ে এক হাজার ২৭৮ দশমিক ০২ পয়েন্টে অবস্থান করে। আর ডিএস ৩০ সূচক ১৯ দশমিক ২৪ পয়েন্ট বা এক শতাংশ বেড়ে এক হাজার ৯২৮ পয়েন্টে অবস্থান করে। মঙ্গলবার ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়ে তিন লাখ ৯১ হাজার ৮২৪ কোটি টাকা হয়। ডিএসইতে মঙ্গলবার লেনদেন হয় ৮০১ কোটি ২১ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৮০১ কোটি ৪২ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট। এ হিসেবে লেনদেন কমেছে ২০ লাখ টাকা। এদিন ১৬ কোটি তিন লাখ ২০ হাজার ৮২৪টি শেয়ার এক লাখ ৪৪ হাজার তিনবার হাতবদল হয়। লেনদেন হওয়া ৩৩৮টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১০১টির, কমেছে ১৯৫টির ও অপরিবর্তিত ছিল ৪২টির দর।

মঙ্গলবার টাকার অঙ্কে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে খুলনা পাওয়ার। ৮৫ কোটি ১৪ লাখ টাকায় কোম্পানিটির ৬৩ লাখ এক হাজার ৪০৫টি শেয়ার লেনদেন হয়। শেয়ারটির দর দুই টাকা ১০ পয়সা বেড়েছে। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ইউনাইটেড পাওয়ারের ৪৪ কোটি ২২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এর পরের অবস্থানগুলোতে ছিল অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, সামিট পাওয়ার, বিবিএস কেব্লস, কনফিডেন্স সিমেন্ট, স্কয়ার ফার্মা, অ্যাকটিভ ফাইন, ইফাদ অটোস ড্রাগন সোয়েটার। ১০ শতাংশ বেড়ে দরবৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে মেঘনা সিমেন্ট। এর পরে ভিএফএস থ্রেড ডায়িংয়ের দর ৯ দশমিক ৯২ শতাংশ, এসিআই লিমিটেডের দর ৮ দশমিক ৭৩ শতাংশ, ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্সের দর ৮ দশমিক ৬৯ শতাংশ, আমান কটন ফাইব্রাসের দর ৮ দশমিক ১৪ শতাংশ, এসিআই ফরমূলা ৭ দশমিক ৫৪ শতাংশ ও লিবরা ইনফিউশন ৭ দশমিক ৪৯ শতাংশ বেড়েছে। এছাড়া অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ ৫ দশমিক ৮৬ শতাংশ, সেন্ট্রাল ফার্মাসিউটিক্যালস ৫ দশমিক ৭৫ শতাংশ ও এমএল ডায়িং ৫ দশমিক ৬৯ শতাংশ বেড়েছে।

অন্যদিকে ৯ দশমিক ০৩ শতাংশ দর কমেছে শ্যামপুর সুগার মিলসের। দুলামিয়া কটনের দর ৮ দশমিক ৯১ শতাংশ কমেছে। এছাড়া লিগ্যাসি ফুটওয়্যারের ৮ দশমিক ৭৪ শতাংশ, বিডি অটোকারের ৮ দশমিক ৭২ শতাংশ, সাভার রিফ্রাক্টরিজের ৭ দশমিক ৪৪ শতাংশ ও বিডি ফাইন্যান্সের দর ৬ দশমিক ২৮ শতাংশ কমেছে। এছাড়া ইনফরমেশন সার্ভিসেস নেটওয়ার্কের দর ৬ দশমিক ২০ শতাংশ, জিল বাংলা সুগার মিলের ৫ দশমিক ৭৫ শতাংশ, ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৫ দশমিক ৬৯ শতাংশ ও এশিয়া ইন্স্যুরেন্সের দর ৫ দশমিক ৫৫ শতাংশ কমেছে।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) মঙ্গলবার সিএসসিএক্স মূল্যসূচক ৪৩ দশমিক ৪২ পয়েন্ট বেড়ে ১০ হাজার ২০২ পয়েন্টে এবং সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৬৬ দশমিক ৬৮ পয়েন্ট বেড়ে ১৬ হাজার ৮৪১ পয়েন্টে অবস্থান করে। মঙ্গলবার সর্বমোট ২৪২টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৮৪টির, কমেছে ১৩৬টির ও অপরিবর্তিত ছিল ২২টির দর।

সিএসইতে এদিন ২৭ কোটি ৪৯ লাখ ৪৫ হাজার টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। আগের কার্যদিবসে ৩৫ কোটি ৮৩ লাখ ৩৯ হাজার ৫০৩ টাকার শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হয়। এ হিসাবে লেনদেন কমেছে আট কোটি ৩৩ লাখ ৯৪ হাজার টাকা। সিএসইতে মঙ্গলবার লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে সামিট পাওয়ার। কোম্পানিটির চার কোটি ৪০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। এর পরে বিএসআরএমের এক কোটি ২৭ লাখ টাকার, কেপিসিএলের এক কোটি ১৩ লাখ, স্কয়ার ফার্মার এক কোটি তিন লাখ, বেক্সিমকোর ৯৯ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

শেয়ারবার্তা / শহিদুল ইসলাম

বাজার বিশ্লেষণ এর সর্বশেষ খবর

উপরে