ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

দুই কোম্পানির আইপিও আপত্তি প্রসঙ্গে বিএসইসির ব্যাখ্যা

২০১৮ জুলাই ৩০ ১৫:৫৩:৩৯
দুই কোম্পানির আইপিও আপত্তি প্রসঙ্গে বিএসইসির ব্যাখ্যা

দুই কোম্পানির আইপিও নিয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। কোম্পানিগুলো হলো কাট্টালি টেক্সটাইল এবং সিলভা ফার্মাসিউটিক্যালস। সোমবার কমিশনের ওয়েবসাইটে এর নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সাইফুর রহমান স্বাক্ষরিত ব্যাখ্যায় এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, কাট্টালি টেক্সটাইলের আইপিও আপত্তি প্রসঙ্গে বলা হয়, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জে কমিশন (পাবলিক ইস্যু) রুলস ২০১৫ অনুযায়ী যে কোন কোম্পানির প্রাথমিক গণ প্রস্তাব (আইপিও) আবেদনের ৯০ দিনের মধ্যে এক্সচেঞ্জের চ‚ড়ান্ত সুপারিশ কমিশনের নিকট দাখিল করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। স্টক একচেঞ্জেসমূহ উক্ত সময়ের মধ্যে তাদের চ‚ড়ান্ত সুপারিশ দাখিল করে থাকে। পরবর্তিতে বিএসইসি, স্টক একচেঞ্জেসমূহের সুপারিশ উল্লেখিত আপত্তিসহ অন্যান্য তথ্যের ঘাটতি থাকলে অধিকতর বিস্তারিত পর্যবেক্ষণসহ সামগ্রিক ঘাটতি পূরণকল্পে প্রমাণক দাখিলের জন্য সংশ্লিষ্ট আবেদনকারী কোম্পানিকে ঘাটতি পত্র ইস্যু করে থাকে। অতঃপর আবেদনকারী কোম্পানির তথ্য ও কাগজপত্রের যথাযথ ঘাটতি পূরণ ও যাচাই সম্পন্ন হলেই কমিশন কোন আবেদনকারী কোম্পানিকে প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের অনুমোদন প্রদান করে থাকে।

উল্লেখ্য, যে সব তথ্য বা দলিল ঘাটতির কারণে ঢাকা স্টক একচেঞ্জে লি:, কাট্টালি টেক্সটাইল লিমিটেডের আইপিও-এর বিপক্ষে গত ২৫ মার্চ সুপারিশ প্রদান করেছিল তা পরবর্তীতে কোম্পানি কর্তৃক দাখিলকৃত প্রমাণক ও কাগজপত্রের ভিত্তিতে পূরণ হয় এবং কমিশন সন্তুষ্ট হয়ে ২৬ জুন উক্ত আইপিও অনুমোদন প্রদান করে। এমনকি চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জে কাট্টালি টেক্সটাইল লিমিটেডের আইপিও-এর পক্ষে চ‚ড়ান্ত সুপারিশ প্রদান করে।

ফলে কাট্ট্রালি টেক্সটাইলের আইপিও প্রস্তাব নিয়ে আপত্তি প্রসঙ্গে একটি পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন যথাযথ নয় বলে দাবি করেন বিএসইসি।

অন্যদিকে, সিলভা ফার্মার আইপিও নিয়ে আইডিএলসির আপত্তি নিয়ে ব্যাখ্যায় বলা হয়, সংশ্নিষ্ট আইন ও বিধিমালা পরিপালন করে যথাযথ প্রক্রিয়ায় সিলভা ফার্মার আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়। এতে বলা হয়, সিলভা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের আইপিও সাবসক্রিপশন বাতিলের বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে আইডিএলসি ফাইন্যান্স গত ২৩ জুলাই একটি চিঠি দেয় বিএসইসিতে। পরদিন চিঠিটি সংস্থার ক্যাপিটাল ইস্যু বিভাগে পাঠানো হলে সঙ্গে সঙ্গে আইডিএলসির এমডির সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। ওই দিনই আইডিএলসির পক্ষ থেকে দেওয়া চিঠির স্বাক্ষরকারী ডিএমডি এম জামাল উদ্দিন কমিশনে উপস্থিত হন এবং বিস্তারিত আলোচনা করেন। এম জামাল উদ্দিন স্বীকার করেন, সিলভা ফার্মাসিউটিক্যালসের কোনো পরিচালক ঋণখেলাপি নন বিধায় এই আইপিও অনুমোদন বিধিসম্মত হয়েছে।

এ সময় তিনি জানান, সিলভা ফার্মাসিউটিক্যালসের কয়েকজন শেয়ারহোল্ডার তাদের অন্য একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আল-আমিন বিস্কুট লিমিটেডের নামে আইডিএলসি থেকে ঋণ নিয়েছেন। আইডিএলসির ঋণ আদায়ে তিনি বিএসইসির সহযোগিতার অনুরোধ করেন এবং পাঠানো চিঠি প্রত্যাহার করে অন্য একটি চিঠি কমিশনে জমা দেবেন বলে জানান।

সাইফুর রহমান জানান, সিলভা ফার্মার আইপিও বিএসইসির সংশ্নিষ্ট বিধিমালা ও অন্যান্য সিকিউরিটিজ আইন পরিপালনপূর্বক যথাযথভাবে অনুমোদন হয়। ফলে সিলভা ফার্মার আইপিও নিয়ে আইডিএলসির আপত্তি প্রসঙ্গে একটি পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন যথাযথ নয় বলে দাবি করেন তিনি।


শেয়ারবার্তা / মামুন

বিএসইসি/ডিএসই/সিএসই এর সর্বশেষ খবর

উপরে