ঢাকা, সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮, ৭ কার্তিক ১৪২৫

সাত ব্যাংকের শেয়ার ছেড়ে দিচ্ছেন বিদেশি বিনিয়োগকারীরা

২০১৮ এপ্রিল ২৫ ১৭:৪১:৪৫
সাত ব্যাংকের শেয়ার ছেড়ে দিচ্ছেন বিদেশি বিনিয়োগকারীরা

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত সাত ব্যাংকের উল্লেখযোগ্য শেয়ার ছেড়ে দিয়েছেন বিদেশি বিনিয়োগকারীরা। তবে চার ব্যাংকে তাদের শেয়ার ধারণের পরিমাণ কিছুটা বেড়েছে। মার্চ শেষে বিদেশিদের বিনিয়োগ নিয়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) তৈরি প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

প্রতিবেদনের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, তালিকাভুক্ত ৩০টি ব্যাংকের মধ্যে আইসিবি ইসলামী ব্যাংক, যমুনা ব্যাংক, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, প্রিমিয়ার ব্যাংক ও রূপালী ব্যাংকে বিদেশিদের বিনিয়োগ নেই। বাকি ২৫টি ব্যাংকের শেয়ারে বিদেশিদের বিনিয়োগ রয়েছে।

মার্চ শেষে ব্যাংকগুলোর প্রায় ১৪২ কোটি ৭৯ লাখ শেয়ার বিদেশিদের কাছে রয়েছে। এক মাস আগে অর্থাৎ ফেব্রুয়ারিতে বিদেশিদের কাছে ব্যাংকের শেয়ার ছিল প্রায় ১৪৬ কোটি ৫০ লাখ। সে হিসাবে এক মাসের ব্যবধানে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা বিভিন্ন ব্যাংকের তিন কোটি ৭১ লাখ শেয়ার ছেড়ে দিয়েছেন। বর্তমান বাজার দরে বিদেশিদের ছেড়ে দেয়া শেয়ারের মূল্য প্রায় ২৪ কোটি টাকা।

বর্তমান বাজার দরে তালিকাভুক্ত ২৫টি ব্যাংকের শেয়ারে বিদেশিদের প্রায় পাঁচ হাজার ৭২৫ কোটি ৯৯ লাখ টাকার বিনিয়োগ রয়েছে। ফেব্রুয়ারিতে এ বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল পাঁচ হাজার ৭৪৯ কোটি ৯৮ লাখ টাকা।

বিদেশিরা যে আটটি ব্যাংকের শেয়ারের কিছু অংশ ছেড়ে দিয়েছেন এর মধ্যে রয়েছে- ইসলামী ব্যাংক, সাউথ ইস্ট ব্যাংক, ওয়ান ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, আইএফআইসি ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক ও সিটি ব্যাংক।

বিদেশিরা সবচেয়ে বেশি ছেড়েছেন ইসলামী ব্যাংকের শেয়ার। এক মাসের ব্যবধানে তারা ব্যাংকটির এক শতাংশ শেয়ার ছেড়ে দিয়েছেন। বিদেশিদের ছেড়ে দেয়া এ শেয়ারের সংখ্যা প্রায় ৪৩ কোটি ১৫ লাখ। মার্চ শেষে ইসলামী ব্যাংকের ২৬ দশমিক ৩৭ শতাংশ শেয়ার বিদেশিদের কাছে আছে, যা ফেব্রুয়ারিতে ছিল ২৭ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

এছাড়া সিটি ব্যাংকের দশমিক ৫৫ শতাংশ, ন্যাশনাল ব্যাংকের দশমিক ৩৮ শতাংশ, মার্কেন্টাইল ব্যাংকের দশমিক ২১ শতাংশ, সাউথ ইস্ট ব্যাংকের দশমিক ১৯ শতাংশ, ওয়ান ব্যাংকের দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ এবং আইএফআইসি ব্যাংকের দশমিক শূন্য ১ শতাংশ শেয়ার বিদেশিরা ছেড়ে দিয়েছেন।

বিদেশিদের ব্যাংকের শেয়ার ধারণের চিত্র :

নাম

মার্চে শেয়ার

ফেব্রুয়ারিতে শেয়ার

মার্চে শেয়ার

ফেব্রুয়ারিতে শেরয়ার

সিটি ব্যাংক

১২.১৬ শতাংশ

১২.৭১ শতাংশ

১১ কোটি ২১ লাখ ২ হাজার

১১ কোটি ৭১ লাখ ৭২ হাজার

আইএফআইসি

১.৯২শতাংশ

১.৯৩ শতাংশ

২ কোটি ২৯ লাখ ২৯ হাজার

২ কোটি ৩০ লাখ ৬৯ হাজার

ইসলামী ব্যাংক

২৬.৩৭শতাংশ

২৭.৩৭ শতাংশ

৪২ কোটি ৪৫ লাখ ৫৪ হাজার

৪৪ কোটি ৬ লাখ ৫৪ হাজার

মার্কেন্টাইল

৭.২৪শতাংশ

৭.৪৫শতাংশ

৫ কোটি ৬১ লাখ ৯০ হাজার

৫ কোটি ৭৮ লাখ ২০ হাজার

এনবিএল

৩.১৬শতাংশ

৩.৫৪শতাংশ

৭ কোটি ৪৯ লাখ ৬ হাজার

৮কোটি৩৯লাখ ১৪হাজার

ওয়ানব্যাংক

৬.৭৯শতাংশ

৬.৮৪শতাংশ

৪ কোটি ৯৫ লাখ ৬৯ হাজার

৪ কোটি ৯৯ লাখ ৩৪ হাজার

সাউথইস্ট ব্যাংক

৬.৮১শতাংশ

৭.০০শতাংশ

৬ কোটি ২৪ লাখ ৪৪ হাজার

৬কোটি ৪১ লাখ ৮৬ হাজার

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সাবেকচেয়ারম্যানএবি মির্জা আজিজুল ইসলাম এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমাদের ব্যাংকিং খাতে বর্তমানে এক ধরনের অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। অযৌক্তিকভাবে সরকারের নির্দেশনায় ব্যাংকের সিআরআর কমানো হয়েছে। এটি আর্থিক খাতের জন্য খুব একটা ভালো লক্ষণ নয়। তবে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত সাতটি ব্যাংকের কিছু শেয়ার বিদেশিরা ছেড়ে দিয়েছেন। সুতরাং বিদেশিরা ব্যাংকের খুব বড় অংকের শেয়ার ছাড়েননি। এ নিয়ে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের খুব বেশি আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. বখতিয়ার হাসান বলেন, বিদেশি বিনিয়োগকারীরা কোনো প্রতিষ্ঠানের শেয়ারে বিনিয়োগের আগে ওই কোম্পানির সার্বিক তথ্য যাচাই-বাছাই করেন। বেশ কিছুদিন ধরে আমাদের ব্যাংকিং খাতে এক ধরনের অস্থিরতা বিরাজ করছে। ব্যাংক খাতের অনিয়ম নিয়ে গণমাধ্যমে প্রায় সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছে। এর অর্থ হলো আমাদের ব্যাংকিং খাত খুব একটা ভালো অবস্থানে নেই। এ কারণেই হয়-তো বিদেশি বিনিয়োগকারীরা কিছু কিছু ব্যাংকের শেয়ার ছেড়ে দিচ্ছেন।

শেয়ারবার্তা / মামুন

অনুসন্ধানী রিপোর্ট এর সর্বশেষ খবর

উপরে