ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ জুন ২০১৮, ৮ আষাঢ় ১৪২৫

ড্রাগন স্যুয়েটার পরিচালকের শেয়ার বিক্রি নিয়ে নানা আলোচনা

২০১৮ মার্চ ১২ ১৬:০১:৪৫
ড্রাগন স্যুয়েটার পরিচালকের শেয়ার বিক্রি নিয়ে নানা আলোচনা

প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের মাধ্যমে পুঁজিবাজার হতে সংগৃহীত অর্থ যথাযথভাবে ব্যবহার না করার অভিযোগে ড্রাগন স্যুয়েটার লিমিটেডের চেয়ারম্যান এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ ৬ জন উদ্যোক্তা পরিচালকদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশে সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশিন (বিএসইসি)। তাঁদের প্রত্যেককে ৫ লাখ টাকা জরিমানা করেছে বিএসইসি। শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের পরের দিনই কোম্পানিটির চেয়ারম্যান ২০ লাখ বোনাস শেয়ার বিক্রির ঘোষণা দিলেন। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

সূত্রমতে, কোম্পানির চেয়ারম্যান মোস্তফা কামরুস সোবহান আজ ১২ মার্চ সোমবার তাঁর হাতে থাকা ৩ কোটি ১২ লাখ ২৩ হাজার ১২৫টি শেয়ারের মধ্যে ২০ লাখ বোনাস শেয়ার স্টক এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে বাজার মূল্যে বিক্রির ঘোষণা দিলেন। তিনি এর আগে গত ৩১ জানুয়ারী ১০ লাখ বোনাস শেয়ার বিক্রির ঘোষণা দিয়েছিলেন।

বিনিয়োগকারীরা বলছেন, শেয়ারবাজার বর্তমানে ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। নাজুক এ পরিস্থিতিতে যেকোন কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকদের শেয়ার বিক্রি বাজারের জন্য ক্ষতিকর। তারপর কোম্পানিটির বিরুদ্ধে আইপিও’র অর্থ যথাযথভাবে ব্যবহার না করার অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে এবং নিয়ন্ত্রক সংস্থা তদন্ত করে তাঁদের সকলকে জরিমানা করেছেন। ফলে শেয়ারবাজারে কোম্পানিটির ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। এমতাবস্থায় কোম্পানিটির চেয়ারম্যানের শেয়ার বিক্রির ঘোষণা বিনিয়োগকারীদের প্রতি তাঁর সহমর্মিতার বহি:প্রকাশই ঘটলো না।

কয়েকজন বিনিয়োগকারী এ প্রতিবেদককে জানান, শেয়ারবাজারে ড্রাগন স্যুয়েটারের ভালো ভাবমূর্তি ছিল। কারণ কোম্পানিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক একজন সাবেক সরকারি কর্মকর্তা। সরকারি চাকুরী করার সময়ে তিনি অনেক সফলতার স্বাক্ষর রেখেছেন। ব্যবসায়িক মহলে এবং সুধীমহলে তিনি বিশেষ মর্যাদার অধিকারী। তাঁর কোম্পানির বিরুদ্ধে আইপিওর অর্থ যথাযথভাবে ব্যবহার না করার অভিযোগ সত্যিই দু:খজনক।

জানা যায়, ৩০ জুন ২০১৭ হিসাব বছরের জন্য ড্রাগন স্যুয়েটার ১৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছিল। আলোচ্য বছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১.২৭ টাকা।

এদিকে, চলতি অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর ২০১৭) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১.১১ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৮৯ টাকা। ইপিএসে প্রবৃদ্ধি এসেছে ২৪.৭২ শতাংশ। অপরদিকে, চলতি অর্থবছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ২০১৭) ইপিএস হয়েছে ০.৬৫ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৪২ টাকা। ইপিএসে প্রবৃদ্ধি এসেছে ৫৪.৭৬ শতাংশ।


শেয়ারবার্তা / মামুন

সংবেদনশীল তথ্য এর সর্বশেষ খবর

উপরে